বুধবার, জানুয়ারি ২০

হাতীবান্ধায় মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে পিটিয়ে রক্তাক্ত; থানায় অভিযোগ

সিরাজুল ইসলাম, লালমনিরহাট:  মারতে নিষেধ করায় শিরিনা বেগম(৩৫) নামে এক বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে মারধর করে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে নজরুল ইসলাম গং এর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় শিরিনা বেগমের স্বামী ও ছেলেও আহত হয়েছেন। মারধরের স্বীকার আহত শিরিনা বেগম বর্তমানে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন। আহত অপর দুইজন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসা শেষে বাড়িতে ফিরে গেছে। ঘটনায় গত বুধবার (৪ নভেম্বর) আহত শিরিনা বেগম বাদী হয়ে নজরুল ইসলামকে প্রধান আসামী করে আরও ৭ জনের নামে থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। এর আগে সোমবার (২ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলার নিজ গড্ডিমারীর ৪ নং ওয়ার্ডে এ ঘটনাটি ঘটে।

আহতরা হলেন, উপজেলার নিজ গড্ডিমারী এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা শহির উদ্দিনের মেয়ে শিরিনা বেগম, শিরিনা বেগমের স্বামী হেলাল (৪০) ও ছেলে শাকিল(১৯)। জানা গেছে, গত ২ নভেম্বর অভিযুক্তরা বেশকয়েক পূর্ব শত্রুতার জেড়ে জোর পূর্বক বীর মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে শিরিনা বেগমের নিজ পুকুরে মাছ ধরতে নামে। এ সময় শিরিনার স্বামী ও ছেলে সেখানে গিয়ে তাদের নিষেধ করে। তবে তারা সেই নিষেধ অমান্য করে মাছ ধরতে থাকে এবং তাদের মাঝে বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এতে অভিযুক্তরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের ধাওয়া করে জোড় পূর্বক বাড়িতে প্রবেশ করে এবং হামলা চালিয়ে মারধর শুরু করে। এ সময় শিরিনা বেগম এগিয়ে এলে তার চুলের মুটি ধরে এলোপাতারি মারধর শুরু করে।

এমনকি ধারালো ছুরি দিয়ে শিরিনার স্বামীর চোখের উপরে কুপিয়ে জখম এবং ছেলেও পিটিয়ে আহত করে। এ সময় তাদের আত্মচিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এসে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করান। উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্সে গিয়ে শিরিনা বেগমের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ওই পুকুরটা আমাদের নিজ ভোগ দখলীয় সম্পত্তি। তারা নিজেদের দাবী করে জোড় পূর্বক মাছ মারতে থাকে। এতে বাধা দেয়ায় আমার স্বামী- সন্তান ও আমাকে বেধড়ক পিটিয়ে এবং ছুরি দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। আমি তাদের কঠিন শাস্তি চাই। এ বিষয়ে হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) এরশাদুল আলম বলেন, তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হবে।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments