বুধবার, জানুয়ারি ২০

মানসিক প্রতিবন্ধি্র জমি রেওয়াজ বদল নেওয়ার অভিযোগ

সিরাজুল ইসলাম ,লালমনিরহাট প্রতিনিধি:  লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় মানসিক প্রতিবন্ধি বুলোবালা (৪৮) নামে এক মহিলার অর্ধকোটি টাকার জমি রেয়াজবদল দলিল নেয়ার অভিযোগ উঠেছে শফিকুল ইসলাম চান নামে এক ব্যত্তির বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত শফিকুল ইসলাম চান(৫১) উপজেলার চলবলা ইউনিয়নের শিয়ালখোওয়া এলাকার রইচ উদ্দিনের ছেলে। ভুক্তভোগি বুলোবালা শিয়ালখোওয়া বাজার সংলগ্ন মৃত গগণ চন্দ্রের মেয়ে এবং মৃত গোবিন্দ নাথ গৌরাঙ্গের স্ত্রী।

অভিযোগে জানা গেছে, শৈশব থেকে মানসিক প্রতিবন্ধি বুলোবালাকে গোবিন্দ চন্দ্র গৌরাঙ্গের সাথে বিয়ে দিয়ে ঘরজামাই করে রাখেন তার পরিবার। বিয়ের সময়ে প্রতিশ্রুতি মোতাবেক মানসিক প্রতিবন্ধি বোনকে শিয়ালখোওয়া বাজার সংলগ্ন ২৭ শতাংশ জমি দানপত্র দলিল করে দেন বুলোবালার ৪ভাই। যার বর্তমান বাজার মুল্য অর্ধকোটির উপরে। সেই থেকে বুলোবালার স্বামী ওই জমি চাষাবাদ করে তার সংসার চালাতেন। ৯ বছর আগে বড় ছেলে দোমাশু চন্দ্র সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান। বড় ছেলের মৃত্যুর এক বছর পরে একমাত্র ছেলে মাধব চন্দ্রকে রেখে মারা যান বুলোবালার স্বামী গৌরাঙ্গ। সেই ছেলে মাধব চন্দ্রও মানসিক প্রতিবন্ধি। এরপর থেকে মানসিক প্রতিবন্ধি বোন বুলোবালা ও ভাগিনা মাধব চন্দ্রকে দেখাশোনা করেন ছোট ভাই সুনিল চন্দ্র। মানসিক প্রতিবন্ধি মাধব বাড়িতে থাকলেও কিছুটা উন্মাদ প্রতিবন্ধি বুলোবালা নিজের ইচ্ছেমত দিনরাত পথে পথে ঘুরে বেড়ান হাটবাজার আর মন্দিরে মন্দিরে। মাঝে মধ্যে বাড়িতে ফিরলেও রাতে ছোট ভাইয়ের বাড়িতে থেকে আবার ভোরে বেড়িয়ে যায়। তাকে আটকানোর সাধ্য নেই। তবে মানসিক প্রতিবন্ধি হলেও অন্যের ক্ষতি করেন না বুলোবালা। মানসিক প্রতিবন্ধি বুলোবালার বাজার সংলগ্ন সড়কের পাশে মুল্যবান জমির উপর দৃষ্টি পড়ে শফিকুল ইসলাম চানের। গত ২০১৮ সালের ১০ ডিসেম্বর শফিকুল ইসলাম চান তিন দাগের দেড় লাখ টাকা মুল্যের মধ্য মাঠের ২০ শতাংশ জমি দিয়ে গোপনে মানসিক প্রতিবন্ধি বুলোবালার অর্ধকোটি টাকার ওই জমির ২০ শতাংশ রেয়াজবদল দলিল(নং-৬২৫১) করে নেন। তবে দখলে যান নি কৌশলী শফিকুল ইসলাম চান। যার কারনে রেয়াজবদলের খবর জানতেন না বুলোবালার পরিবার বা গ্রামবাসী কেউ। সাম্প্রতিক সময় বুলোবালার জমিটি শফিকুল নিজের বলে দাবি করে রেয়াজবদলের খবর প্রকাশ করেন।

পরে দলিলের নকল তুলে জানতে পেয়ে দলিলটি বাতিল ও প্রতিকার চেয়ে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মানসিক প্রতিবন্ধি বুলোবালার ভাই সুনিল চন্দ্র। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও প্রতিকার তো দুরের কথা তদন্ত পর্যন্ত করা হয়নি বলে দাবি করেন সুনিল চন্দ্র। অভিযুক্ত শফিকুল ইসলাম চানের সাথে অনেক চেষ্টা করেও দেখা বা কথা বলা সম্ভব হয়নি।

বুলোবালার কাকাত ভাই দীনবন্ধু সাধু জানান, তিন খন্ডের মাত্র দেড় লাখ টাকার জমি দিয়ে বাজার সংলগ্ন সড়কের পাশে অর্ধকোটি টাকার জমি হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন চানমিয়া। মানসিক প্রতিবন্ধির সম্পদ বিক্রি বা বিনিময়ের নিয়ম নেই। তবুও কিভাবে হলো আমরা বুঝলাম না। দলিলের বিষয়ে কিছু জানি না। দলিলটি ৫/৭ কিলোমিটার দুরের লোকজনকে স্বাক্ষী করা হয়েছে। তিনিও এ অন্যায়ের বিচার দাবি বরেন। ওই এলাকার ইউপি সদস্য সাবেদ আলী জানান, মানসিক প্রতিবন্ধি বুলোবালা ও তার ছেলে মাধব চন্দ্রকে প্রতিবন্ধি ভাতা দেয়া হয়। মানসিক প্রতিবন্ধির জমি কিভাবে রেয়াজবদল হলো আমি বুঝতে পারছি না। বুলোবালা ও তার ছেলের প্রতি অন্যায় করা হয়েছে। তিনিও বিচার দাবি করেন। কালীগঞ্জ উপজেলা সাব রেজিস্টার পরিতোষ চক্রবর্তি জানান, মানসিক প্রতিবন্ধি হিসেবে তার পরিচয়পত্র তুলে না ধরায় এমনটা হতে পারে। খোঁজ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রবিউল হাসান জানান, স্থায়ী মানসিক প্রতিবন্ধির সম্পদ গোপনে বিনিময়ের সুযোগ নেই। অভিযোগ হয়তো ডাকফাইলে আছে, দৃষ্টিতে আসেনি। খোঁজ খবর নিয়ে বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হবে বলেও জানান তিনি।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments